লিখুন
ফলো

আমাদের নতুন খবর গুলো পেতে এখনি সাইন আপ করুন

মস্তিষ্কের বয়স কমানোর উপায়

ছোটবেলা থেকেই আমি দুশ্চিন্তায় ভুগতাম। বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমার উদ্বেগ আরও বেড়ে গেল, আর আমি এ বিষয়টি থেকে বের হতে চাচ্ছিলাম।

আমি ১৪ বছর বয়সে মাদক দ্রব্য ব্যবহার শুরু করি, এবং ২০ বছর বয়সে আমি হেরোইন আসক্ত ছিলাম। আমি পরবর্তী ১৫ বছর আমার শরীর আর মন ধ্বংস করে কাটিয়েছি। কিন্তু আমি ভাগ্যবান ছিলাম।

জীবন আমাকে দ্বিতীয় সুযোগ দিয়েছে আর আমি এর প্রতিটা সেকেন্ড কাজে লাগিয়েছিলাম। কেউ কেউ হয়তো বলবে যে আমি আসক্তি পরিবর্তন করেছি।

Image Source: Google

এটা ছিল ২০১৩ সালের অক্টোবর মাসে, এবং তারপর থেকে আমি একজন পিএইচডি ছাত্র, একজন লেখক, জীবন পরিবর্তন কৌশলবিদ এবং আয়ারল্যান্ডের শীর্ষ দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক হয়েছি।

আমি আমার নতুন জীবন সাজানোর জন্য একটি রুটিন সেট করেছি। এই কর্মসূচীর অভ্যাস আমাকে শুধু বাহ্যিক সাফল্য অর্জনে সাহায্য করেনি; তারা আমার শারীরিক, মানসিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যও বদলে দিয়েছে।

আমি ডিটক্সে থাকাকালীন ব্রেইন ইমেজিং গবেষণার অংশ ছিলাম। আমার আসক্ত মস্তিষ্ক থেকে স্ক্যান ব্যবহার করে, আমরা তাদের ৫ বছর পর আমার মস্তিষ্কের স্ক্যানের সাথে তুলনা করেছি এবং পার্থক্যগুলো ছিল অবিশ্বাস্য। আশ্চর্যজনকভাবে, আমি শুধু আমার মস্তিষ্কের বয়সই উল্টে দিইনি, এটা এখন আমার বয়সের একজন সাধারণ মানুষের চেয়ে প্রায় ১০ বছরের ছোট।



নীচে আমি বর্ণনা করছি কিভাবে আমাদের মস্তিষ্ক পরিবর্তিত হতে পারে।

আমাদের মস্তিষ্ক কিভাবে পরিবর্তন করতে পারে

প্লাস্টিক মস্তিষ্ক

আমাদের মস্তিষ্ক নোংরা এবং আমাদের অভিজ্ঞতা তাদের আকৃতি নির্ধারণ করে এবং সময়ের সাথে সাথে এর আকৃতি পরিবর্তিত হবে।

Image Source: Google

আমি সুস্থ হওয়ার আগে আমি উদ্বিগ্ন ছিলাম। আমি সবসময় টেনশন, অস্বস্তিকর এবং উদ্বিগ্ন বোধ করতাম। আমি আমার উদ্বেগ দূর করার উপায় খুঁজছিলাম।

এটা যে কোন নেতিবাচক অনুভূতি, চিন্তা এবং আবেগের জন্য একই। রাগ, আত্মসংশয় বা ভয় যাই হোক না কেন, আপনার মস্তিষ্ক অবশেষে সেই আকার ধারণ করবে।



সৌভাগ্যক্রমে, আপনি আপনার মস্তিষ্ককে আরো ইতিবাচক দিকে আকৃতি দিতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, নিয়মিত সচেতনতা অনুশীলনের মাধ্যমে নিউরোপ্লাস্টিকতার শক্তি ব্যবহার করে, আপনি আরো স্থিতিশীল হতে পারেন, তীক্ষ্ণ মনোযোগ বিকশিত করতে পারেন, এবং আপনার অনুভূতিগুলিআরো কার্যকরভাবে পরিচালনা করতে পারেন।

মস্তিষ্কের বয়স

Image Source: Google


ট্রিনিটি কলেজ ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সে আমাদের ল্যাব মস্তিষ্কের বয়স সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করার একটি উপায় নিয়ে কাজ করেছে। আমরা মস্তিষ্কের ধূসর পদার্থের ঘনত্ব বিশ্লেষণ করে মস্তিষ্কের ভবিষ্যদ্বাণী করা বয়স (ব্রেইনপ্যাড স্কোর) গণনা করি। এটি বর্ধিত মৃত্যুর ঝুঁকি, জ্ঞানীয় পতন, ডিমেনশিয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি, এবং দুর্বল শারীরিক কার্যকারিতার সাথে সম্পর্কিত।

২০১৩ সালে আমার মস্তিষ্কের বয়স ছিল ২.৮৪ বছর।’ ১৫ বছর ধরে মাদকাসক্তির পর এটা বিস্ময়কর ছিল। তবে ২০১৮ সালে আমার মস্তিষ্ক আমার কালানুক্রমিক বয়সের চেয়ে ১০ বছরের কম বয়সী ছিল।



স্ক্যানের মধ্যে ৫ বছরের মধ্যে আমি আমার মস্তিষ্কের বয়স ৬ বছরের বেশি কমিয়ে দিয়েছি।

মস্তিষ্ক পরিবর্তনের কিছু অভ্যাস

নিচের অনেক অভ্যাস বৈজ্ঞানিকভাবে মস্তিষ্কের পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত। এর মধ্যে রয়েছে ধ্যান, মানসিক চাপ কমানো, ঘুম এবং পুষ্টি।

অন্য কেউ সরাসরি মস্তিষ্কের পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত হতে পারে না, কিন্তু নিউরোপ্লাস্টিকিটি দেখায়, সব ধরনের শিক্ষা মস্তিষ্কের পরিবর্তনের ফলাফল।

১। আত্ম-পর্যবেক্ষণ পর্যবেক্ষণ করুন

‘আত্মা’ মানে আপনার আত্ম-ধারণা, আপনার গল্প। আপনি যদি কোনভাবে কষ্ট ভোগ করে ন তাহলে ‘আত্মা’ থেকে বিচ্ছিন্ন হলে আপনি একটি বিশাল সুখ অনুভব করার স্বাধীনতা পাবেন।

আত্ম-পর্যবেক্ষণ, যা ধ্যানের একটি রূপ। এটা আপনার চিন্তা, অনুভূতি এবং শারীরিক অনুভূতি গুলো পর্যবেক্ষণের সাথে জড়িত।

আসল কথা হচ্ছে, আপনি একজন পর্যবেক্ষকের উদ্বিগ্ন চিন্তা, অনুভূতি এবং শারীরিক অনুভূতি সম্পর্কে একজন পর্যবেক্ষকের দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করতে পারেন। যখন আপনি এই অভ্যাস বাস্তবায়ন করবেন, তখন আপনাকে অবশ্যই অন্য কোন কিছুতে সম্পৃক্ত না হয়ে এটা করতে হবে।



মেঘের রূপক এই সর্বোত্তম ব্যাখ্যা করে। আকাশে মেঘ ভাসতে ভাসতে আপনার চিন্তা, অনুভূতি বা শারীরিক অনুভূতি কল্পনা করুন। কখনও কখনও তারা অন্ধকার হয়। কখনও কখনও তারা হালকা এবং শান্ত হয়। যতক্ষণ না তারা চলে যাচ্ছে ততক্ষণ আপনি তাদের পর্যবেক্ষণ করেন।

আত্ম-পর্যবেক্ষণ শুধুমাত্র আত্মসচেতনতা বাড়ায় না – এটি আপনাকে চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতিতে সাহায্য প্রদান করে। তবে অতিরিক্ত চিন্তা আমাদের ব্যক্তিগত কল্যাণের উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে।

২। প্রশ্ন অনুসন্ধান করুন, উত্তর নয়

আমরা সবাই মাঝে মাঝে প্রশ্নে আটকে থাকি। কিন্তু উত্তর খোঁজার বদলে, আমি দেখেছি যে প্রশ্ন জীবনের জটিলতা উন্মোচনের জন্য ভাল।

এখানে ৭টি প্রশ্ন আমি নিজেকে নিয়মিত জিজ্ঞেস করি:

 i) এই পরিস্থিতির কোন অংশ আমার নিয়ন্ত্রণে আছে?

এটা একটা শক্তিশালী প্রশ্ন কারণ খুব কম বিসয়ই আমাদের নিয়ন্ত্রণে আছে। অনেকে এটাকে একটি সমস্যা হিসেবে দেখে, কিন্তু আপনি যা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তার উপর মনোযোগ দিলে আপনি বুঝতে পারবেন যে এটা কোন দুর্বলতা নয়- এটা একটা শক্তি।

ii) আপনি কি ক্রমাগত এড়িয়ে চলেছেন?

অনেক বার, আপনি জানেন কি করতে হবে, কিন্তু তা সত্ত্বেও আপনি ক্রমাগত এটা এড়িয়ে যান।



iii) আমার মেন্টররা এ ব্যাপারে কি ভাববে?

এই প্রশ্ন আপনাকে অন্যদের দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করার অনুমতি দেয়। এবং তার চেয়েও ভালো, এমন একজনের দৃষ্টিভঙ্গি যাকে আপনি ভীষণভাবে প্রশংসা করেন। আপনার মেন্টররা এ ব্যাপারে কি ভাববে সে নিয়ে চিন্তা করতে হবে না।

vi) আগামীকাল-আমি কি ভাবব?

সবকিছুই একটি প্রেক্ষাপটে ঘটে, এবং আমাদের সিদ্ধান্ত প্রায়ই সেই প্রেক্ষাপটে প্রতিফলিত হয়। এজন্যই এই প্রশ্নটা এত মূল্যবান।  

v) আমি যদি এই বিষয়ে হ্যাঁ বলি, তাহলে আমি কি বলছি?

স্টিভ জবস একবার বলেছিলেন যে এটা শুধু না বলার মাধ্যমে যে আপনি জীবনে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে মনোনিবেশ করতে পারেন। আমি এই লাইন ভালবাসি কারণ এটা আমাকে এই প্রশ্নের ক্ষমতা উপলব্ধি করতে সাহায্য করেছে। আমাদের সম্পর্ক হোক বা আমাদের স্বাস্থ্য, আমাদের সবচেয়ে প্রিয় বিষয় নিয়ে চিন্তা করতে হবে। তারপর, যখন আমরা একটা জিনিসকে হ্যাঁ বলি, আমরা জানি যে আমরা এমন কিছুকে না বলছি যেটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়।



vi) এটা কি আমার মূল্যবোধের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ?

মানুষ প্রায়ই এমন সিদ্ধান্ত নেয় যা তাদের মূল্যবোধের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এর অনেক কারণ আছে, কিন্তু প্রায়ই এর কারণ হচ্ছে তারা নিজেদের এই সহজ প্রশ্ন করে না। পরের বার যখন আপনি কিছু করবেন এবং মনে হবে যে এটা ঠিক হচ্ছে না, তখন নিজেকে জিজ্ঞেস করুন। আপনি জীবনে নিজেকে সবচেয়ে বেশি মূল্য দিন।

vii) আমি যদি এটা চেষ্টা করি তাহলে সবচেয়ে খারাপ কি হবে?

কখনও কখনও সবচেয়ে খারাপ কিছু ঘটতে পারে যা আপনি মনে করেন ততটা খারাপ নয়। যখনই আমি কোনো সমস্যায় আটকে থাকি তখনই এই প্রশ্নগুলো আমাকে আমার জীবন ঠিক করতে সাহায্য করে।

৩। ইমোশন হ্রাস

আপনি কি কখনো ভয়ে পুরোপুরি কেঁপে কেঁপে উঠেছেন? ড্যানিয়েল গোলেম্যান এটাকে একটি মানসিক অপহরণ বলে অভিহিত করেছেন।



আজকের বিশ্বে, প্রায়ই, মানসিক চাপ প্রতিক্রিয়া, অথবা বাহ্যিক পরিবেশ দ্বারা সক্রিয় করা হয় না- এটা আমাদের নিজেদের মন দ্বারা সক্রিয় করা হয়। এই অভ্যন্তরীণ চাপগুলোর কোন অস্তিত্ব নেই- বাস্তবে ও নয়। এগুলো আমাদের মনের অনুমান, এবং তাদের মধ্যে কিছু সম্পূর্ণ অযৌক্তিক। উদ্বেগ, যা শৈশবের মানসিক আঘাতের ফলে, বা শারীরিক অনুভূতিকে কেন্দ্র করে ঘটে।  

৪। বর্তমান মুহূর্তের উপর মনোযোগ দিন

গবেষণায় দেখা গেছে যে একটি নিয়মিত সচেতনতা অনুশীলন আপনার আবেগ নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। এটা দুইভাবে ঘটে। প্রথমত, শারীরিক আকার হ্রাস পায়। দ্বিতীয়ত,  ভয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্টেক্সের অংশের মধ্যে সংযোগ দুর্বল হয়ে পড়ে, অন্যদিকে আত্মসচেতনতার সাথে সংশ্লিষ্ট সংযোগগুলি শক্তিশালী করা হয়।

আমার নিজের সচেতনতা অনুশীলন আমাকে সফলতা এনে দিয়েছে। আমি আক্ষরিক অর্থেই আমার মস্তিষ্কের ভয় হ্রাস করতে পেরেছি এবং এর ফলে, আমি আগের মত উদ্বেগ অনুভব করি না। মানসিক চাপপূর্ণ ঘটনা এখনো আমাকে চ্যালেঞ্জ করে, কিন্তু উদ্দীপনা এবং প্রতিক্রিয়ার মধ্যে একটি জায়গা তৈরি করে, আমি আর আমার আবেগ দ্বারা বিচ্যুত হই না।

গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে সচেতনতা আপনার মস্তিষ্কের বয়স কমিয়ে দেয়। সাম্প্রতিক এক গবেষণায়, ধ্যানকারীদের আনুমানিক মস্তিষ্কের বয়স অ-ধ্যানকারীদের তুলনায় সাড়ে ৭ বছরের ছোট।



আপনি যদি নতুন থাকেন, তাহলে আপনি এই অভ্যাসে প্রবেশ করা কঠিন মনে করতে পারেন। এর দুটি কারণ আছে। প্রথমত, বিভিন্ন কৌশল আছে, প্রতিটি একটি অনন্য ফোকাস সঙ্গে। দ্বিতীয়ত, সচেতনতা বর্ণনা করতে ব্যবহৃত ভাষা নতুনদের পক্ষে বোঝা কঠিন করে তুলতে পারে।

আরো পড়ুনঃ

শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমানোর জন্য ৫ টি গুরুত্ব পূর্ণ ব্যায়াম

সচেতনতা সত্যিই বেশ সহজ এবং সবচেয়ে ভালো ‘লক্ষ্য বস্তু’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। যদি আপনি কিছু লক্ষ্য করেন, তাহলে আপনি সেগুলো সম্পর্কে সচেতন থাকেন। যদি আপনি কিছু না লক্ষ্য করেন, তাহলে আপনি সেগুলো সম্পর্কে সচেতন নন।

৫।  আপনার ঘুমের রুটিন সেট করুন

ঘুম অনেক মস্তিষ্কের ফাংশনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, যার মধ্যে রয়েছে কিভাবে নিউরন একে অপরের সাথে যোগাযোগ করে। সাম্প্রতিক গবেষণায় আরও জানা গেছে যে ঘুম ব্রায়ান টক্সিন দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

যখন থেকে আমি সুস্থ হয়ে উঠেছি, আমি ন্যূনতম ৭ ঘন্টা ঘুমাতে পারি, এবং একটি কাঠামোগত রুটিন থাকার মাধ্যমে, আমার ঘুমাতে কোন সমস্যা নেই।



i) যতক্ষণ না আপনার ঘুম আসছে ততক্ষণ বিছানায় যাবেন না।  আপনি যদি আপনার শরীর ঘুমানোর জন্য প্রস্তুত হওয়ার আগে বিছানায় যান, তাহলে আপনার দুশ্চিন্তা রয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, যা ঘুমানো আরও কঠিন করে তোলে।

ii) আপনি যদি ঘুমাতে না পারেন, তাহলে ঘুম না হওয়া পর্যন্ত বিছানা থেকে উঠে নিন। যদি আপনি মাঝরাতে জেগে থাকেন আর ঘুমাতে না পারেন বিছানা থেকে উঠে পড়েন যতক্ষণ না আবার ঘুমা আসছে। আপনি আপনার প্রিয় কিছু বৈ বা লেখা পড়তে বা দেখতে পারেন। সবচেয়ে খারাপ কাজ হচ্ছে ঘুমাতে না পারা নিয়ে চিন্তা করে বিছানায় থাকা।

iii) একটি ধারাবাহিক সময় বেছে নিন জেগে ওঠার জন্য। যখন আমরা ক্রমাগত আমাদের জেগে ওঠার সময় পরিবর্তন করি তবে এটা আমাদের দেহের জন্য ক্ষতির দিকে নিয়ে যায়। এটা ঘটে কারণ আপনার শরীরের ঘুম অনুভব করার প্রধান সংকেত হচ্ছে আপনি কতদিন জেগে আছেন। আপনি যদি সারা সপ্তাহ ধরে বিভিন্ন সময়ে জেগে থাকেন, তাহলে আপনার শরীর কখনোই ঘুমের ধারাবাহিক ধারায় বিকশিত হতে পারবে না।



iv) ঘুমাবেন না। যখন আপনি প্রথম সকালে জেগে ওঠেন, আপনার মস্তিষ্কে তখন যুক্তিসঙ্গতভাবে চিন্তা করা কঠিন। ফলস্বরূপ, যখন আপনি জেগে উঠার পর যদি আবার বিছানায় শুয়ে থাকেন, আপনার উদ্বিগ্ন হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। সকালের এই দুশ্চিন্তা এড়ানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হল বিছানা থেকে উঠে সোজা আপনার কাজে যুক্ত হওয়া।

৬। আপনার অ্যালকোহল ব্যবহার সীমিত করুন

সবচেয়ে সহজ সমাধান প্রায়ই সবচেয়ে শক্তিশালী হয়। যখন মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের কথা আসে তখন বিশেষ করে অ্যালকোহল আমাদের মস্তিষ্ককে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। প্রথমত, এটি নিউরনের মধ্যে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় যার ফলে তাৎক্ষণিক ভাবে নেশার উপসর্গ দেখা দেয়, যেমন নোংরা কথা বলা, দুর্বল স্মৃতি, এবং ধীর গতির রিফ্লেক্স। দ্বিতীয়ত, অ্যালকোহল নিউরোটক্সিটির অন্যতম প্রধান কারণ। এটা ঘটে যখন নিউরোট্রান্সমিটারের অতিরিক্ত সংস্পর্শে নিউরন ‘বার্ন আউট’ হতে পারে। মস্তিষ্ক ভারী অ্যালকোহল ব্যবহারের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, যার ফলে ‘মস্তিষ্ক সংকুচিত’ হতে পারে।

দুর্ভাগ্যবশত, গবেষণায় দেখা গেছে যে মানুষ তাদের স্বাস্থ্যের চেয়ে অ্যালকোহলে বেশি আগ্রহী, বিশেষ করে সাম্প্রতিক মহামারীর পর থেকে। অ্যালকোহল স্বল্প মেয়াদে আপনাকে ভালো অনুভব করতে পারে, কিন্তু আপনার মানসিক স্বাস্থ্যের উপর উদ্বেগজনক প্রভাব ফেলতে পারে। অ্যালকোহল এড়িয়ে চলাই শ্রেয়, কিন্তু যদি এটা অযৌক্তিক মনে হয়, তাহলে আপনার অ্যালকোহল খাওয়া সীমিত করা উচিত, যেহেতু এটি অনেক মানুষের জন্য উদ্বেগের একটি মূল কারণ।



সঠিক পরিসংখ্যান দেওয়া কঠিন, কিন্তু এন এইচ এস (ন্যাশনাল হেল্থ সার্ভিস) পুরুষ এবং মহিলাদের সপ্তাহে ১৪ ইউনিটের বেশি পান না করার পরামর্শ দেয়।

৭। মস্তিষ্কে ভালো কিছু ঢুকান

আমি আমার সময় এবং শক্তি বিনিয়োগ করেছি নতুন দক্ষতা বিকাশ, নতুন সমস্যা সমাধান, নতুন জ্ঞান অর্জন, এবং আমার জীবন উন্নত করার উপায় বের করতে। সময়ের সাথে সাথে এই ধরনের শিক্ষা স্বপ্নের বাইরে সুযোগ খুলে দেয়।

কিন্তু আমি শুধু ভালো জিনিস শিখিনি। আমি আমার জীবনে নেতিবাচক জিনিসও পর্যবেক্ষণ করেছি। এর মধ্যে রয়েছে নেতিবাচক সংবাদ এবং সোশ্যাল মিডিয়া।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) মহাপরিচালক টেড্রোস আধানম ঘেব্রেসাস বলেন: “আমরা শুধু একটি মহামারীর সাথে লড়াই করছি না; আমরা একটা ইনফোডেমিকের সাথে লড়ছি। এই ভাইরাসের চেয়ে কিছু ভুয়া খবর দ্রুত এবং সহজে ছড়িয়ে পড়ছে। আর এটা সেই ভাইরাসের থেকেও বেশি বিপদজনক।  তাই আমাদের সচেতন থাকতে হবে। আমাদের নির্ভরযোগ্য উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে।



তবে অ্যালকোহলের মত, আপনার সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার সীমিত করা গুরুত্বপূর্ণ, যদিও এটি তথ্যের উপর ভিত্তি করে।

৮। বৃদ্ধির জন্য জ্বালানী হিসেবে চ্যালেঞ্জ ব্যবহার করুন

চ্যালেঞ্জ জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। সফলতার জন্য এটা দরকার। স্থিতিশীল লোকেরা এটা জানে। জীবন তাদের দিকে যা ছুঁড়ে ফেলে তা মোকাবেলা করার পরিবর্তে, তারা প্রতিকূলতার দিকে ঝুঁকে পড়ে এবং সফলতার জন্য তা ব্যবহার করে।

প্রতিটি পরিস্থিতি ই উন্নয়নের একটি সুযোগ, বিশেষ করে চ্যালেঞ্জিং। তাই শুধু মোকাবেলা করার চেষ্টা না করে, চ্যালেঞ্জকে সফলতার জন্য জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করুন।

১০।  আপনার ভয়ের দিকে ঝুঁকে পড়ুন

আমাদের ভয়ের মুখোমুখি হওয়া সহজ নয়। আমার মানসিক জগৎ এখন আমার সবচেয়ে বড় শক্তি। এটা আমাকে আমার জীবনে অবিশ্বাস্য নতুন সম্পর্ক গড়ে তুলতে সাহায্য করেছে, এবং জনসম্মুখে কথা বলা সহজ করেছে। এটা এখন আমার সবচেয়ে বড় আবেগ।



যদি আপনি ভয় কাটিয়ে উঠতে চান, তাহলে সবচেয়ে ভালো কাজ হচ্ছে তাদের দিকে ঝুঁকতে হবে। যদি আপনি উচ্চতা ভয় পান, একটা বাঙ্গি লাফ দিন। আপনি যদি আপনার প্রয়োজনীয় কঠিন কথোপকথন নিয়ে নার্ভাস থাকেন, তাহলে যান এবং সেই ব্যক্তির সাথে কথা বলুন। আপনি যদি ব্যর্থতাকে ভয় পান, তাহলে ব্যাপকভাবে ব্যর্থ হন এবং প্রক্রিয়া থেকে শিক্ষা নিন।  এটাই সফল হওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায়।

১১। লাইফ ইট আপ

এই অভ্যাস আমাকে অন্যদের সাথে আমার সাক্ষাতে আনন্দ, শক্তি এবং বর্তমান মুহূর্তের সচেতনতা আনতে নির্দেশ দেয়।

আমার প্রিয় চিন্তার নেতা অ্যাডাম রবিনসনের সাথে যোগাযোগ করার পর আমি সম্প্রতি এই অভ্যাস বাড়িয়ে দিয়েছি। অ্যাডাম পরামর্শ দিচ্ছেন যে আমাদের প্রতিটি মুহূর্তে ঝুঁকে পড়া উচিত এবং জাদু এবং অলৌকিক ঘটনার সম্মুখীন হওয়া উচিত।

১২। আপনার হৃদয়ের কথা শুনুন

সমাজের নিয়ম সবসময় প্রযোজ্য হয় না। আপনি যদি আপনার হৃদয় অনুসরণ করেন, এবং আপনি আইন ভঙ্গ না করেন, তাহলে সামাজিক আদর্শকে চ্যালেঞ্জ করতে ভয় পাবেন না। যদি এটা সঠিক মনে হয় তাহলে লোকের কথায় কান দেবার দরকার নেই। আপনার হৃদয়ের কথা শুনুন।  



প্রায় ৭ বছর আগে আমার হৃদয় আমার আবেগ অনুসরণ করার জন্য চিৎকার করছিল। আমি এখন আয়ারল্যান্ডের শীর্ষ দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রভাষক।

১২। নতুন গল্প লিখুন

আমাদের সবারই একটা গল্প আছে, আর এটা আমাদের ব্যবহৃত শব্দের সাথে লেখা। যদি তুমি নিজেকে বলো যে তুমি অলস, তাহলে তুমি সেই অনুযায়ী কাজ করবে। যদি তুমি নিজেকে বলো যে তুমি মানিয়ে নিতে পারবে না, তাহলে হয়তো তুমি পারবে না।

এটি গবেষণা দ্বারা দেখায় যে ভাষা আবেগের একটি বাহন। ফলস্বরূপ, আপনি কিভাবে চিন্তা করেন, এবং আপনি যে ভাষা ব্যবহার করেন তা আপনার অনুভূতি নির্ধারণ করে। তাই আপনার কথা গুলো সাবধানে বেছে নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে নিজের সাথে কথা বলার সময়। প্রতিকূলতা আপনাকে থামাতে পারবে না- এটা সমৃদ্ধির ক্ষমতাকে ইন্ধন জোগায়।

আপনি নিজে যে প্রশ্ন গুলি করেন তাও আপনার পর্যবেক্ষণ করা উচিত। উদাহরণস্বরূপ, “কেন আমি?” এর পরিবর্তে “আমি এই ব্যাপারে কি করতে পারি?” এর পরিবর্তে আপনাকে একটি নিয়ন্ত্রণ বোধ প্রদান করবে।



বার্তা

আমরা বারবার যা করি তা দ্বারা আমাদের জীবন সংজ্ঞায়িত করা হয়। এই অভ্যাসগত আচরণ গুলি কেবল আমাদের বাহ্যিক জগৎকেই প্রভাবিত করে না-তারা নির্ধারণ করে আমরা কিভাবে চিন্তা করি এবং অনুভব করি।

কিন্তু এটা শুধু আমাদের মস্তিষ্কের গঠন ই পরিবর্তন করে না। যখন আমরা আমাদের জীবনে ইতিবাচক অভ্যাস প্রয়োগ করি, আমরা আমাদের মস্তিষ্কের বয়সও পরিবর্তন করি।

অভ্যাস আমাদের সত্তার কাপড়। যখন আপনি আপনার অভ্যাস পরিবর্তন করেন, আপনি আপনার মস্তিষ্ক পরিবর্তন করেন। আর যখন আপনি আপনার মস্তিষ্ক পরিবর্তন করবে, তখন আপনার জীবন বদলে যাবে।

Total
21
Shares
Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

 
Previous Article

ওয়ান্ডাভিশন: সিটকমের আড়ালে রহস্যঘেরা ব্যতিক্রমী এক সুপারহিরো সিরিজ

Next Article

উপসাগরীয় যুদ্ধ: সাদ্দাম হোসাইনের কুয়েত দখল এবং এর পরিণতি (পর্ব-১)

 
Related Posts
আরও পড়ুন

চাকরির ইন্টারভিউয়ের সময় বেতন সমঝোতা করার ৬টি উপায়

যখন চাকরীর জন্য আবেদন প্রক্রিয়া চলতে থাকে তখন স্যালারি নিয়ে আলোচনা করাটা একটা কঠিন চ্যালেঞ্জের মতো।  যখন আপনার সামনে একটি চাকরির অফার আসে তখন হয়ত আপনি…
আরও পড়ুন

পারফিউমের ইতিহাস : প্রাচীন মেসোপোটেমীয় পণ্য যেভাবে তৈরী করলো বিলিয়ন ডলারের বাজার

সৌন্দর্যচর্চায় সাজপোশাক ও অলঙ্কারের পাশাপাশি যে আরেকটি বিষয় খুবই গুরুত্ববহ সেটি হলো পারফিউম বা সুগন্ধি। দৈনন্দিন জীবনে আমরা…
আরও পড়ুন

অর্থ সম্পর্কে যে ১২টি বিষয় খেয়াল রাখা উচিৎ

যখন আপনি কর্মক্ষেত্রে সময় কাটান, তখন আপনি আপনার পরিবার থেকে আলাদা।যখন তুমি জীবনে একটা জিনিস পাবে তখন তুমি…
আরও পড়ুন

কিভাবে একটি চাকরির ইন্টারভিউয়ের সময় নিজেকে উপস্থাপন করবেন

চাকরি! ক্যারিয়ার ডেভেল্পমেন্টের জন্য যা খুবি দরকার। আর চাকরি পেতে হলে আমাদেরকে সব সময় ইন্টারভিউয়ের মুখোমুখি হতে হয়।…

আমাদের নিউজলেটার জন্য সাইন আপ করুন

আমাদের নতুন খবর গুলো পেতে এখনি সাইন আপ করুন

Sign Up for Our Newsletter